কবরে ভূমিষ্ট সন্তান

তখন উমর রাদিআল্লাহু আনহুর খিলাফত কাল। একদিন উমর রাদিআল্লাহু আনহু এক যুগল পিতা পুত্রকে দেখে অবাক হয়ে গেলেন। তদের মধ্যকার সাদৃশ্যতা ছিল দেখার মতো।


.
ছেলেটির বাবা উমর রাদিআল্লাহু আনহুকে দেখে বলে উঠল ‘হে আমিরুল মুমিনীন! আল্লাহর কসম! আমার পুত্র যখন জন্ম নেয়, তার মা তখন মৃত ছিল।’ একথা শুনে উমার রাদিআল্লাহু আনহু অভিভূত হয়ে গেলেন। বিস্ময় মাখা কন্ঠে জিজ্ঞেস করলেন ‘আমাকে বলো তো! আসলে কী হয়েছিল?’
.
লোকটি তখন বলা শুরু করল ‘আমার স্ত্রী যখন গর্ভবতী তখন আমি সফরে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম।’ স্ত্রী আমাকে বলল ‘এই সংকটাপন্ন মুহূর্তে আমাকে একা ফেলে, তুমি কিভাবে সফরে যাচ্ছ?’ আমি তাকে বললাম ‘তোমার গর্ভস্থিত বিষয়ে আমি আল্লাহকে ভরসা করছি।’
.
তারপর সফর শেষে আমি বাড়ি ফিরে এলাম। বাসায় এসে আমার স্ত্রীর নাম ধরে ডাকলাম কিন্তু কেউ সাড়া দিল না। আমি জানতে পারলাম, সে আর বেঁচে নেই। কাঁদতে কাঁদতে তার কবরের কাছে গেলাম।
.
সেদিন সন্ধ্যায় আমি এক ভইয়েব সাথে বসে ছিলাম। আমার স্ত্রীর কবরটা আমাদের সামনেই ছিল। হঠাৎ ওর কবরের দিকে তাকিয়ে আমার মনে হলাে সেখানে আগুন জ্বলছে। আমি আমার ভাইকে এটা দেখালে সে বলল ‘আমরা তো এটা সে মারা যাওয়ার পর থেকেই দেখে আসছি।’
.
আমি বললাম ‘আল্লাহর কসম! সে খুবই ধার্মিক নারী ছিল। সব সময় নিজের পবিত্ৰতা বজায় রাখত। সালাত পড়ত, সিয়াম পালন করত।’ তখনি বাসায় ফিরে গিয়ে আমার কুঠারটি নিয়ে তার কবরের কাছে এলাম। এসে দেখি, কবর আগে থেকেই খালা। তাকিয়ে দেখলাম, আমার স্ত্রীর লাশ বসা অবস্থায় রয়েছে। আর আমার ছেলেটা ওর সাননে হামাগুড়ি দিয়ে খেলছে।
.
ঠিক সেই মুহূর্তেই আকাশের নীলিমা ভেদ করে একটি কণ্ঠস্বর ভেসে আসল-
.
أيها المستودع ربه وديعيته خذ وديعتك
.
‘হে ভরসাকারী! তুমি তোমার রবের উপর ভরসা করেছিলে। তোমার সম্পদ নিয়ে যাও।’
.
সাথে সাথে আমি ছেলেটিকে তুলে নিলাম। আর সে সন্তানকেই আপনি এখন দেখতে পাচ্ছেন, হে আমিরুল মুমিনীন। [তাবরানী, হাদিস নং ৮২৪]
.
প্রিয় পাঠক! বর্তমান সময়ে এই ঘটনা থেকে আমরা কি কি শিক্ষা পাচ্ছি? আপনার ভাবনার জগতে কি উদয় হচ্ছে? সুন্দর করে লিখে যান। ইনশাআল্লাহ সবাই উপকৃত হবে।
▂▂▂▂▂▂▂▂▂▂▂▂▂
.
লেখাঃ আব্দুল্লাহ ইবনে জাহান (আল্লাহ্‌ তাকে উত্তম প্রতিদান দান করুন!)

One thought on “কবরে ভূমিষ্ট সন্তান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *